শিরোনাম

ভীষণ ২০৩০ তুলে ধরতে ২০ মিনিট লেট খালেদা জিয়া

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৫:৫৪:২৫ অপরাহ্ণ - ১০ মে ২০১৭ | ২৬৩

সরকারে গেলে রাষ্ট্রপরিচালনা পদ্ধতি কী হবে সে বিষয়ে বিএনপির দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা ‘ভিশন-২০৩০’ ঘোষণা স্থলে নির্ধারিত সময়ের ২০ মিনিট পরে আসলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। কিন্তু বুধবার বিকাল সাড়ে চারটায় সংবাদ সম্মেলন শুরু হওয়ার কথা ছিলো। তারও আগে আসেন বিএনপির নেতা, আমন্ত্রিত অতিথি ও গণমাধ্যম কর্মীরা।

কিন্তু সাড়ে চারটা বাজার পরও সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়নি। দেখতে দেখতে বেজে গেল পৌনে পাঁচটা। গণমাধ্যম কর্মীদের প্রশ্নে বিব্রত বিএনপি কর্মীরা। অবশেষে খালেদা জিয়া সম্মেলন স্থলে আসলেন চারটা ৫০ মিনিটে। এরপর শুরু হয় সংবাদ সম্মেলন।

বিভিন্ন সময় দলের কর্মসূচি নির্ধারিত সময়ের চেয়ে বিলম্বে অনুষ্ঠিত হওয়ার রেওয়াজ বিএনপিতে অনেক আগের। বিশেষ করে দলের চেয়ারপারসনের অনুষ্ঠানগুলো প্রায়শ বিলম্বে শুরু হয়ে থাকে। যা নিয়ে দলের ভেতরে বাইরে নানা সমালোচনাও আছে।

বিএনপির মধ্যে কথা আছে, নির্ধারিত সময়ে অনুষ্ঠান করতে না পারায় বিএনপি সেইভাবে কভার পায় না। বিএনপিপন্থি বুদ্ধিজীবীরা অনেকে রাতের শুরুতে কর্মসূচি শুরু করার পরামর্শ দিলেও  সেই রীতি এখনো শুরু করেনি বিএনপি।

সংবাদ সম্মেলনে আছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ, তরিকুল ইসলাম, জমির উদ্দিন সরকার, মাহবুবুর রহমান, রফিকুল ইসলাম মিয়া, এমকে আনোয়ার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

ভাইস চেয়ারম্যানদের মধ্যে আছেন আব্দুল্লাহ আল নোমান, শাহজাহান ওমর, আব্দুল মান্নান, এজে মোহাম্মদ আলী, হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, খন্দকার মাহবুব হোসেন, রুহুল আমিন চৌধুরী, ইনাম আহমেদ চৌধুরী, এজেডএম জাহিদ হোসেন, শওকত মাহমুদ, মো. শাহজাহান, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, শামসুজ্জামান দুদু, নিতাই রায় চৌধুরী, সেলিমা রহমান।

চেয়ারপারসনের উপদেষ্টাদের মধ্যে ছিলেন আমান উল্লাহ আমান, জয়নুল আবদিন ফারুক, হাবিবুর রহমান হাবিব, আতাউর রহমান ঢালি, তাজমেরী এসএ ইসলাম, অধ্যাপক সুকোমল বড়ুয়া।

জোটের শরিকদের মধ্যে আছেন আন্দালিব রহমান পার্থ, শফিউল আলম প্রধান, সৈয়দ মোহাম্মদ ইবরাহীম, জেবেল রহমান গানি, ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, মূফতি ওয়াক্কাস, মোস্তফা জামাল হায়দার, মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, সাইফুদ্দিন আহম্মেদ মনি, এএইচএম কামরুজ্জামান খান, আজহারুল ইসলাম, সাঈদ আহমেদ।

এছাড়াও আছেন মাহবুব উল্লাহ, মাহফুজ উল্লাহ , জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

কূটনীতিকদের মধ্যে ভারত, চীন, বৃটেন, দক্ষিণ কুরিয়া, আরব আমিরাত, জাপান, ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান, কাতার, সৌদি আরব, অট্রেলিয়া, জার্মানি, তুরস্কসহ বেশ কয়েকটি দেশ ও ইই্উ, ইউএনডিপিসহ বেশ কয়েকটি সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

janatarpratidin.com / Md. Bappy / 10 May 2017

 

সর্বশেষ
%d bloggers like this: