শিরোনাম

হিট স্ট্রোকের লক্ষণ ও করণীয়

সর্বশেষ আপডেটঃ ০১:৩৫:৩৪ পূর্বাহ্ণ - ২৮ এপ্রিল ২০১৭ | ৩৪৩

তীব্র গরমে দিশেহারা অবস্থা। নানা রকম অসুখ-বিসুখে আক্রান্ত হচ্ছে অনেকে। আর্দ্রতা বাড়লে দেহ গরম হতে থাকে। দেহ গরম হলে হিটস্ট্রোক হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে।

হিট স্ট্রোক কী?
গরমের সময়ের একটি মারাত্মক স্বাস্থ্যগত সমস্যার নাম হিট স্ট্রোক। চিকিৎসা শাস্ত্র অনুযায়ী, প্রচণ্ড গরম আবহাওয়ায় শরীরের তাপ নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা নষ্ট হয়ে শরীরের তাপমাত্রা ১০৫ ডিগ্রি ফারেনহাইট ছাড়িয়ে গেলে তাকে হিট স্ট্রোক বলে।

স্বাভাবিক অবস্থায় রক্ত দেহের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা রাখে। কোনো কারণে শরীরের তাপমাত্রা বাড়তে থাকলে ত্বকের রক্তনালি প্রসারিত হয় এবং অতিরিক্ত তাপ পরিবেশে ছড়িয়ে দেয়। প্রয়োজনে ঘামের মাধ্যমেও শরীরের তাপ কমে যায়। কিন্তু প্রচণ্ড গরম ও আর্দ্র পরিবেশে বেশি সময় অবস্থান বা পরিশ্রম করলে তাপ নিয়ন্ত্রণ আর সম্ভব হয় না।

হিট স্ট্রোকের লক্ষণগুলো কী?
* শরীরের তাপমাত্রা দ্রুত ১০৫ ডিগ্রিº ফারেনহাইট ছাড়িয়ে যায়।
* ঘাম বন্ধ হয়ে যায়।
* ত্বক শুষ্ক ও লালচে হয়ে যায়।
* নিশ্বাস দ্রুত হয়।
* নাড়ির স্পন্দন ক্ষীণ ও দ্রুত হয়।
* রক্তচাপ কমে যায়।
* খিঁচুনি, মাথা ঝিমঝিম করা, অস্বাভাবিক আচরণ, হ্যালুসিনেশন, অসংলগ্নতা ইত্যাদি।
* প্রস্রাবের পরিমাণ কমে যায়।
* রোগী শকেও চলে যায়। এমনকি অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে।

কী করবেন
রোগীকে ঠান্ডা স্থানে নিন।
তার শরীর ভেজা কাপড় দিয়ে মুছে দিন। সম্ভব হলে গোসল করান।
রোগীর বগল, ঘাড়, পিঠে আইস প্যাক লাগাতে পারেন। প্রাথমিক চিকিৎসা করার পর রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে নিন।

হিটস্ট্রোক এড়াতে
হালকা রঙের, ঢিলাঢালা পোশাক পরুন।
গরমে পর্যাপ্ত পানি পান করুন।
গরমে ব্যায়ামের আগে ও পরে পানি পান করুন।
সম্ভব হলে খুব গরমে বাইরে কাজ করা থেকে বিরত থাকুন।
প্রস্রাবের রং পরীক্ষা করুন। প্রস্রাবের রং গাঢ় হলুদাভ হলে এটি পানিশূন্যতার লক্ষণ। এ সময় প্রচুর পানি পান করুন।

এ বিভাগের জনপ্রিয় খবর

সর্বশেষ