শিরোনাম

সজীব ওয়াজেদ জয়ই নেতৃত্ব দেবে আওয়ামী লীগের প্রচারণায়

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৪:১৬:০৭ পূর্বাহ্ণ - ০৯ জুলাই ২০১৮ | ৩৫১

জনতার প্রতিদিনঃ

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রচারণায় নেতৃত্ব দেবেন সজীব ওয়াজেদ জয়।
তরুণ প্রজন্মকে অকৃষ্ট করতে এবং তাঁর জনপ্রিয়তাকে ব্যবহার করতেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে আওয়ামী লীগের নীতি-নির্ধারকরা। আক্টোবরে নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হলেই, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গঠিত হবে নির্বাচনকালীন সরকার।
নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর প্রচারকাজে নিয়ন্ত্রণ আসবে। বর্তমান নির্বাচনী আচরণ বিধি অনুযায়ী, তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকা ছাড়া অন্য নির্বাচনী এলাকায় প্রচারণার সুযোগ পাবেন না। অন্যান্য মন্ত্রী এবং এমপিদের ক্ষেত্রেও প্রচারণা সুযোগ থাকবে সীমিত। ফলে স্পর্শকাতর এবং অপেক্ষাকৃত দুর্বল আসনগুলোতে আওয়ামী লীগের প্রচারণা দুর্বল হয়ে যাবে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর হবে প্রথম ভোটার এবং দ্বিতীয় ভোটাররা। ১৮ থেকে ২৫ বছর বয়সী ভোটাররাই এবার ভোটের ভাগ্য নিয়ন্তা বলে আওয়ামী লীগের গবেষণায় উঠে এসেছে।
প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় তরুণদের মধ্যে অত্যন্ত জনপ্রিয়। তিনি যেহেতু, আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন না, তাই নির্বাচনী বিধি-নিষেধ তাঁর জন্য প্রযোজ্য হবে না। আওয়ামী লীগেও জয় অত্যন্ত জনপ্রিয়। তাঁর উপস্থিতি এবং অংশগ্রহণে বিভিন্ন এলাকায় কোন্দল এবং অন্ত:কলহ অনেক কমে যাবে বলেই মনে করছে আওয়ামী লীগ।
আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা, দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রীর পদে থেকে জাতীয় নির্বাচনে দলের নেতৃত্ব দেবেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা বলছেন, ২০১৪’র নির্বাচন আর এ বছরের শেষে অনুষ্ঠিত নির্বাচনের মধ্যে অনেক পার্থক্য থাকবে। ২০১৪’র নির্বাচনে বিএনপি সহ অধিকাংশ রাজনৈতিক দল অংশ নেয়নি। এক তরফা নির্বাচনে ১৫৪টি আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত হয়েছিল।
ঐ নির্বাচনে প্রচারণার প্রয়োজন হয় নি। কিন্তু আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে বলেই মনে করছে আওয়ামী লীগ। বিএনপি ছাড়াও প্রায় সব রাজনৈতিক দল ঐ নির্বাচনে অংশ নেবে। নির্বাচন হবে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে, বিএনপির সব নেতারাই সারাদেশে প্রচারণায় অংশ নেয়ার সুযোগ পাবে। সেক্ষেত্রে এরকম অনেক নির্বাচনী এলাকা আওয়ামী লীগ চিহ্নিত করেছে যেগুলোতে শুধু প্রার্থী জোয়ার তুলতে পারবে না। এক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের তুরুপের তাস হবেন জয়।
আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্র গুলো বলছে, শুধু সভা সমাবেশ নয়, ডিজিটাল প্রচারণা পরিচালিত হবে সজীব ওয়াজেদ জয়ের নেতৃত্বে। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা মনে করছেন, ২০১৮’র নির্বাচনে মাঠের বক্তৃতার চেয়ে ফেসবুক ও ইউটিউবের মতো সোশ্যাল মিডিয়া অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তরুণ ভোটারদের কাছে প্রচলিত গণমাধ্যম আর সরাসরি জনসংযোগ করে যাওয়া সহজ হবে না। অথচ সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের সহজেই যুক্ত করা সম্ভব। নির্বাচনে সাইবার যুদ্ধে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দেবেন সজীব ওয়াজেদ জয়।
ইতিমধ্যে জয়ের নেতৃত্ব এবং নির্দেশনায় এনিয়ে কাজ করছে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী টিম।

সর্বশেষ
%d bloggers like this: