শিরোনাম

রাজশাহী-বরিশালে নৌকা সিলেটে ধানের শীষ এগিয়ে

সর্বশেষ আপডেটঃ ০২:১৪:০০ পূর্বাহ্ণ - ৩১ জুলাই ২০১৮ | ২৯১

রাজশাহী ও বরিশাল সিটি করপোরেশন নিবার্চনে মেয়র পদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রাথীর্রা বিজয়ী হয়েছেন। আর সিলেট সিটি নিবার্চনে বিএনপির মেয়র প্রাথীর্ আরিফুল হক চৌধূরী এগিয়ে আছেন বলে জানায় যমুনা টেলিভিশন।

রাত ১১টায় এ রিপোটর্ লেখা পযর্ন্ত রাজশাহীতে এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন ও বরিশালে সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাকে বেসরকারিভাবে জয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। রাজশাহীতে খায়রুজ্জামান লিটন পেয়েছেন ১ লাখ ৬৬ হাজার ৩৯৪ ভোট। অন্যদিকে বিএনপির প্রাথীর্ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল পেয়েছেন ৭৮ হাজার ৪৯২ ভোট। আর বরিশালে আওয়ামী লীগের প্রাথীর্ সাদিক আবদুল্লাহ ১২৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ১১৬ কেন্দ্রে পেয়েছেন ১০২২০৪ ভোট। আর বিএনপির প্রাথীর্ মজিবর রহমান সরোয়ার পেয়েছেন ১০৬০২ ভোট। অনিয়মের কারণে বাকী ১৭ কেন্দ্রের ফল ঘোষণা স্থগিত রয়েছে।

আর সিলেট সিটি করপোরেশন নিবার্চনে রাত ১১টা পযর্ন্ত ঘোষিত ফলাফলে নৌকা ও ধানের শীষের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখা যাচ্ছে।

নগরীর উপশহরে আবুল মাল আবদুল মুহিত ক্রীড়া কমপ্লেক্সে স্থাপিত রিটানির্ং কমর্কতার্র কাযার্লয় থেকে ফল ঘোষণা করছেন রিটানির্ং কমর্কতার্ মো. আলীমুজ্জামান।

১৩৪ কেন্দ্রের মধ্যে ১২৩ কেন্দ্রের ফলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রাথীর্ বদরউদ্দিন আহমদ কামরান নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৮০৪০৩ ভোট। তার প্রতিদ্ব›দ্বী বিএনপির প্রাথীর্ আরিফুল হক চৌধুরী ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৮৩৬৪৯ ভোট। এ ক্ষেত্রে আরিফুল হক চৌধুরী ৩২৪৬ ভোটে এগিয়ে রয়েছেন। অবশ্য ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পরপরই অনিয়মের অভিযোগ তুলে নিবার্চন প্রত্যাখ্যান করেছিলেন বিদায়ী মেয়র আরিফুল হক; সে সময় তিনি বলেছিলেন, ফল যাই হোক না কেন, তিনি তা প্রত্যাখ্যান করছেন। তবে ফল ঘোষণার কেন্দ্রে ষে পযর্ন্ত উপস্থিত ছিলেন তিনি। সিলেট দুটি কেন্দ্রে ইভিএমে ভোটগ্রহণ হয়। তাতে আরিফুল হক তার প্রধান প্রতিদ্ব›দ্বী কামরানের চেয়ে ৭৪২ ভোটে এগিয়ে ছিলেন।

সিলেটে মোট ভোটার ৩ লাখ ২১ হাজার ৭৩২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৪ জন এবং নারী ১ লাখ ৫০ হাজার ২৮৮ জন।

এছাড়া সিলেট সিটি নিবার্চনে নিজের কেন্দ্রে পৃষ্ঠা ২ কলাম ৬

হেরেছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রাথীর্ বদরউদ্দিন আহমদ কামরান। তিনি সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চবিদ্যালয়ের ভোটার। এই কেন্দ্রের ভোটের ফলে বিএনপির প্রাথীর্ আরিফুল হক চৌধুরীর কাছে ১৩০ ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন তিনি।

সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে ধানের শীষ প্রতীকে আরিফুল হক চৌধুরী ভোট পেয়েছেন ৭৭৬টি, নৌকা প্রতীকে কামরান পেয়েছেন ৬৪৬ ভোট। এ ছাড়া জামায়াতের প্রাথীর্ (স্বতন্ত্র) এহসানুল ্মাহবুব জুবায়ের পেয়েছেন ২৬ ভোট।

উল্লেখ্য, অনানুষ্ঠানিক উৎস থেকে পাওয়া ভোটের আইনগত কোনো ভিত্তি নেই। ভোট ফল ঘোষণা করেন রিটানির্ং কমর্কতার্। রিটানির্ং কমর্কতার্ ঘোষিত ফলই চূড়ান্ত। তবে বিভিন্ন উৎস থেকে পাওয়া ফলাফলের সঙ্গে রিটানির্ং কমর্কতার্ ঘোষিত ফলাফলে পাথর্ক্য হয় না। কখনো কখনো প্রাপ্ত ভোটের সামান্য হেরফের হয়, যদিও তা জয়-পরাজয় নিধার্রণে ভূমিকা রাখে না।

সর্বশেষ
%d bloggers like this: