শিরোনাম

ময়মনসিংহে শিশু শিক্ষার্থীকে পাশবিক নির্যাতন

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৬:০৬:৫২ অপরাহ্ণ - ১২ মে ২০১৭ | ৩৮৫

ময়মনসিংহের নান্দাইলে ৬ বছরের এক কন্যা শিশুকে লিচুঁ দেয়ার কথা বলে পাশবিক নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
জেলার নান্দাইল উপজেলার পৌর এলাকার সাত নং ওয়ার্ডের ৭নং ঝাউগড়া এলাকায় বৃহস্পতিবার বিকেলে ঘটনাটি ঘটেছে।
স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, ধর্ষণে অভিযুক্ত স্থানীয় যুবক ঝাউগড়া গ্রামের হোছেন আলীর ছেলে হৃদয় মিয়া (১৫) গাছ থেকে লিচুঁ দেয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে নিয়ে একটি জঙ্গলে নিয়ে যায়। সেখানে শিশুটিকে ধর্ষণ করে। শিশুটি আত্মচিৎকার শুরু করলে শিশুটিকে ফেলে হৃদয় মিয়া পালিয়ে যায়।

চিৎকার শুনে তার নানী ও এলাকাবাসী শিশুটিকে উদ্ধার করে নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। পরে শিশুটির অবস্থা দেখে কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পেরন করেন।
মা বাবা কাছে না থাকা শিশুর নানী ঝাউগড়া গ্রামের সখিনা খাতুন জানান, সুতারাটিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রী। বাড়ির পাশেই নরসুন্ধা নদী। শিশুটিকে কোলে করে হৃদয় মিয়া নদীর ওপাড়ে একটি জঙ্গলে নিয়ে পাশবিক নির্যাতন চালায়।
কর্তব্যরত ডাক্তার মহিউদ্দিন মোহাম্মদ আলমগীর জানান, নির্যাতনের ক্ষত রয়েছে। তবে ফরেনসিক পরীক্ষার মাধ্যমে জানা যাবে তথ্য।
নান্দাইল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইউনুস আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানানএই ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অভিযুক্ত হৃদয়কে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

 

janatarpratidin.com / Md. Bappy / 12 May 2017

 

সর্বশেষ
%d bloggers like this: