শিরোনাম

নারীরা পুরুষের তুলনায় সৎ : তারানা হালিম

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৮:০১:৫১ অপরাহ্ণ - ২৭ মার্চ ২০১৮ | ২৪২

নিজস্ব প্রতিবেদক : পুরুষের তুলনায় নারীরা অপেক্ষাকৃত সৎ বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। তিনি বলেন, তাই প্রধনমন্ত্রী বলেন, ‘নারীরা সৎ তাদের বিভিন্ন পদে আরও চাই আরও চাই’।
আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) আয়োজিত এক সেমিনারে তারানা হালিম এ মন্তব্য করেন। মঙ্গলবার দুপুরে আগারগাঁও পিকেএসএফ ভবনের সেমিনার হলে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
তারানা হালিম বলেন, ‘আমি বলছি না সব পুরুষ অসৎ, আমি বলছি নারীরা পুরুষদের তুলনায় সৎ।’ তিনি বলেন, ‘একজন পুরুষকে কোনো কাজ দেয়া হলে তাকে প্রথমেই যোগ্য ভাবা হয়। কিন্তু একজন নারিকে কোনো কাজ দিলে তাকে প্রথমে এর যোগ্য মনে করা হয় না। তাকে কাজের মাধ্যমে প্রমাণ করতে হয় তিনি যোগ্য।’ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘দিন বদল হয়েছে, এই মানসিকতা থেকে বের হতে হবে। জেন্ডার যোগ্যতার মাপকাঠি হতে পারে না।’
প্রধান অতিথির বক্তব্যে তারানা হালিম বলেন, ‘নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে তিনটি ‘এম’ প্রধান বাধা। একটা হলো মানি (টাকা), ম্যাসেল ( পেশিশক্তি) ও ম্যান (মানুষ)।’
নিজের এলাকার উদাহরণ দিয়ে তারানা হালিম বলেন, ‘দেখা যায় যে আমার সঙ্গে চলে তাকে কেউ থাপ্পর দিল। তিনি আমাকে এসে বললেন, ‘আপা অমুক লোক আমাকে থাপ্পর দিয়েছে’। আমি তাকে বলি আরেকটা গাল পেতে দেও, সহনশীল হও।’ তিনি বলেন, ‘আপা এভাবে তো রাজনীতি হয় না। নারীরাতো সন্ত্রাসী নিয়ে চলাফেরা করে না। আর দ্বিতীয়টা হলো টাকা আমরা শুনি এনটি সংসদ সদস্য নির্বাচনে তিন থেকে চার কোটি টাকার ভোটের রাজনীতি। কিন্তু নারীদের তো অর্থ সমস্যা, এত টাকা নির্বাচনে ব্যয় করার চিন্তাও করতে পারে না তারা।’
তারানা হালিম নারীদের প্রতি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘নারীরা কি নারীবান্ধব। যদি সেটাই হয় তাহলে কেন একজন শাশুড়ি তার বউকে নির্যাতন করে। কেন বউ তার শাশুড়িকে কীভাবে জ্বালাতন করে। কীভাবে পাশের বাড়ির মেয়েটি সম্পর্কে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সমালোচনা করে এরজন নারী। আমাদের নিজেকে নিয়ে সমালোচনা করা উচিত।’
এসময় তারানা হালিম নারীদের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে বলেন। আমাদের সৌভাগ্য আমরা নারীবন্ধব সরকার পেয়েছি।
পিকেএসএফ-এর চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ-এর সভাপতিত্বে সেমিনারে বক্তব্য দেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব জিল্লার রহমান, কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, উইমেন ফর উইমেন এর নির্বাহী পরিচালক ড. নিলুফার বানু, পিকেএসএফের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল করিম। অনুষ্ঠানে ‘সময় এখন নারীর: উন্নয়নে তারা, বদলে যাচ্ছে গ্রাম-শহরে কর্মজীবরন ধারা’ বিষয়ে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইকো-সোশ্যাল ডেভলপমেন্টে আর্গানাইজেশনের নির্বাহী পরিচালক ড. মুহম্মদ শহীদ উজ জামান।
ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ পিকেএসএফএর সমৃদ্ধি কর্মসূচিসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে বলেন, ‘ধনী হোক বা গরিব হোক নারী হোক বা পুরুষ হোক সবার অধিকার সমান। আমরা মানুষের অধিকার রক্ষায় কাজ করি।’
সমৃদ্ধি কার্যক্রমের এখন ২০০টি ইউনিয়ন অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘মানুষের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করাই উন্নয়ন। কাউকে বাদ দিয়ে টেকসই উন্নয়ন সম্ভব নয়।’ তিনি বলেন, ‘আমরা সরাদেশে এক লাখ তরুণ তরুণীকে মানবিক গুণাবলির শিক্ষা দিয়েছি। তারা এখন বাল্য বিবাহে কুফল তুলে ধরাসহ বিভিন্ন সামাজিক কাজ করে থাকেন।’
সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব জিল্লার রহমান বলেন, ‘সরকার ১১ লাখ ১৫ হাজার বয়স্ক ও বিধবাদের ভাতা দিচ্ছে। এবং বৃদ্ধদের জন্য একটি তহবিল গঠন করেছে সরকার। যেখানে অসুস্থ বৃদ্ধরা আবেদন করলে তাদের ৫০ হাজার টাকা দেয়া হয়।’
অনুষ্ঠানে নেত্রকোনার ‘স্বাবলম্বী উন্নয়ন সমিতি’বেগম রোকেয়াকে সম্মাননা দেয়া পিকেএসএফ। এসময় জানানো হয় বেগম রোকেয়া ৩২ বছর ধরে সমাজিক উন্নয়ন ও নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করে যাচ্ছে।

সর্বশেষ
%d bloggers like this: