শিরোনাম

জিএসটির প্রভাবে বাংলাদেশ-ভারত বাণিজ্যে স্থবিরতা

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৭:২০:১২ অপরাহ্ণ - ০৪ জুলাই ২০১৭ | ৪০৯

ভারতে সদ্য চালু হওয়া পণ্য ও পরিষেবা কর (জিএসটি) অনুযায়ী কাস্টমসের কম্পিউটার ব্যবস্থা হালনাগাদ না হওয়ায় পশ্চিমবঙ্গের পেট্রাপোল ও বাংলাদেশ সংলগ্ন অন্যান্য স্থল বন্দরে বাংলাদেশ-ভারত বাণিজ্যে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। এতে করে বাংলাদেশ সীমান্ত সংলগ্ন ভারতীয় স্থল বন্দরগুলোতে শত শত ট্রাক সারিবদ্ধভাবে আটকা পড়েছে। ১ জুলাই মধ্যরাত থেকে গোটা ভারতে অভিন্ন এই কর ব্যবস্থা আনুষ্ঠিকভাবে চালু করার পর থেকেই এ সমস্যা দেখা দিয়েছে বলে জানিয়েছে ফিনানসিয়াল এক্সপ্রেস।

কোলকাতা কাস্টমস হাউজ এজেন্টেস অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট সুজিত চক্রবর্তী বার্তা সংস্থা পিটিআইকে বলেন, ‘১ জুলাই থেকেই আমরা সমস্যার সম্মুখীন। জিএসটির সফটওয়্যার অবকাঠামো যথাযথ নয়। সমস্যা সমাধানে শত প্রচেষ্টা সত্ত্বেও সফটওয়্যার নির্বিঘ্নে কাজ করছে না। এতে করে আন্তঃসীমান্ত ট্রাক চলাচলে অত্যন্ত স্থবিরতা নেমে এসেছে।’

তিনি বলেন, আমরা পণ্যের চালানের বিল কিংবা আমদানিকৃত মালামালের বিল এন্ট্রি করার চেষ্টা করছি। কিন্তু প্রচুর ভুল দেখাচ্ছে এবং ছাড়পত্রের প্রক্রিয়া অত্যন্ত ধীর গতির। এখানে কোনো সঠিক দিকনির্দেশনা নেই।

খবরে বলা হয়, আগে যেখানে পেট্রাপোল স্থল বন্দর হয়ে গড়ে প্রতিদিন ৩৫০টি ট্রাক রফতানি পণ্য নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে সেখানে এখন মাত্র ১০০টি ট্রাক প্রবেশ করছে।

এছাড়া নতুন জিএসটি সফটওয়্যারের প্রভাবে পেট্রাপোল বন্দরের চেয়ে পশ্চিমবঙ্গের মালদা জেলার মাহাদীপুর স্থল বন্দরের বাণিজ্যে বেশি প্রভাব পড়েছে। জানা যায়, জিএসটি চালু করার পর রোববার সেখানে কয়েকশ’ ট্রাক আটকে পড়লে বাংলাদেশ-ভারত বাণিজ্য কয়েক ঘণ্টার জন্য স্থবির হয়ে পড়ে।

পশ্চিমবঙ্গ রফতানিকারক সমন্বয় কমিটির মহাসচিব উজ্জ্বল সাহা জানান, মাহাদীপুর স্থল বন্দরে আটকে পড়া ট্রাকগুলোতে ছিল ফল, পেঁয়াজ, মসলা, পাথরকুচি ও পাথর। তিনি বলেন, পরে কাস্টম বিভাগের সিনিয়র কর্মকর্তারা পুরোনো পদ্ধতিতে রফতানি বিল তৈরির নির্দেশ দিলে ধীরে ধীরে কাজ শুরু হয়। ভাগ্য ভালো বাংলাদেশে ঈদের কারণে শনিবার বাণিজ্য বন্ধ ছিল। না হলে শনিবার থেকেই এ বিড়ম্বনা শুরু হতো।

মাহাদীপুর স্থল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে প্রতিদিন অন্তত ৫০০টি ট্রাক রফতানি পণ্য নিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। প্রতি বছর এই বন্দর দিয়ে পণ্য রফতানি করে দেড় হাজার কোটি রুপি আয় করে।

এক কর্মকর্তা বলেন, সময় মতো কম্পিউটারের সফটওয়্যার হালনাগাদ করতে না পারায় বন্দরটিতে রবিবার অন্তত ১০ কোটি রুপি ক্ষতি হয়েছে। এই ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন স্থানীয় ইংলিশবাজার আসনের এমএলএ নিহার রঞ্জন ঘোষ।

উল্লেখ্য, ১ জুলাই মধ্যরাত থেকে ভারতে নতুন কর ব্যবস্থা জিএসটি চালু হয়েছে। এর ফলে বিভিন্ন পণ্য ও পরিষেবার জন্য বিভিন্ন রাজ্যের আগের আরোপিত করের হার বাতিল হয়ে গেছে। জিএসটির মধ্য দিয়ে পুরো ভারতে অভিন্ন কর ব্যবস্থা চালু হয়।

 

janatarpratidin.com / Md. Bappy / 04 July 2017

 

সর্বশেষ
%d bloggers like this: