শিরোনাম

কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গল্পে কয়েকটি শ্রেষ্ঠ সিনেমা

সর্বশেষ আপডেটঃ ০১:১৫:৩২ পূর্বাহ্ণ - ০৮ মে ২০১৭ | ৭২১

১২৬৮ বঙ্গাব্দ ২৫ বৈশাখ কলকাতার এক ধনাঢ্য ও সংস্কৃতিবান ব্রাহ্ম পিরালী ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। বাংলা ভাষা, সাহিত্য ও সঙ্গীতের কিংবদন্তি পুরুষ কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৬তম জন্মবার্ষিকী আগামীকাল। কবি হিসেবে বিশ্বব্যাপী খ্যাত হলেও রবীন্দ্রনাথ ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী।

বিশ্বকবির জন্মের ৩৪ বছর পর চলচ্চিত্রের উদ্ভাবন হয়। এরপর গীতাঞ্জলি কাব্যগ্রন্থের জন্য রবীন্দ্রনাথের নোবেল বিজয়ে আন্তর্জাতিকভাবে সবার দৃষ্টি কাড়ে বাংলা সাহিত্য। তার সৃষ্টি নিয়ে নাটক, সিনেমা তৈরি করা হয়েছে অনেক। তার কিছু সৃষ্টি যা সিনেমায় রূপ নিয়েছে এমন কয়েকটি সিনেমা আলোচনা করা হলো।

মিলন: বিখ্যাত পরিচালক নিতিন বোষ ১৯৪৫-৪৬ সালে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘নৌকা ডুবি’ উপন্যাসের কাহিনী অবলম্বনে মিলন সিনেমাটি নির্মাণ করেন। সিনেমাটিতে অভিনেতা হিসেবে ছিলেন দিলীপ কুমার। আর এটিই ছিল দিলীপ কুমারের প্রথম সার্থক সিনেমা।

কাবুলিওয়ালা: কবির চমৎকার সৃষ্টি ‘কাবুলিওয়ালা’ গল্পের উপর ভিত্তি করে বাংলাদেশ ভারত দুই দেশেই ‘কাবুলিওয়ালা’ নামেই সিনেমা নির্মিত হয়েছে। ১৯৬১ সালে বিমল রায় কাবুলিওয়ালা সিনেমা তৈরি করেন। সিনেমাটি খুবই বিখ্যাত হয়। এতে কাবুলিওয়ালার ছোট বাচ্চাকে স্মরণ করতে দেখা গেছে। এতে অভিনয় করেছিলেন বলরাজ সহানী। আমাদের দেশে ২০০৬ সালে কাজী হায়াৎ নির্মিত সিনেমায় চমৎকার অভিনয় করেছিলেন আমার প্রিয় নায়ক প্রয়াত মান্না।

উপহার: রবীন্দ্রনাথের ছোট গল্প ‘সমাপ্তি’ এর উপর ভিত্তি করে রচিত হয় ‘উপহার’ নামক সিনেমাটি। ১৯৭১ সালে সুধেন্দু’র নির্দেশনায় এটি নির্মিত হয়েছিল। প্রধান অভিনেত্রী ছিলেন জয়া বচ্চন। রবীন্দ্রনাথের এই কাজের মাঝে সৌন্দর্য ও সম্পর্কের গভীরতার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করা হয়।

চার অধ্যায়: উপন্যাস ‘চার অধ্যায়’ অবলম্বনে ১৯৯৭ সালে নির্মিত হয় চার অধ্যায় সিনেমাটি। এতে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে সশস্ত্র বিদ্রোহের চিত্র ফুঁটে উঠেছিল। নন্দিনী ঘোষাল ও সুমন্ত চট্টপাধ্যায় অভিনীত এই সিনেমাটির পরিচালনায় ছিলেন কুমার সাহনী।

ঘরে বাইরে: উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত এই ছবিটি মুক্তি পায় ১৯৮৪ সালে। এই ছবিতে অভিনয় করেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, ভিক্টর বন্দ্যোপাধ্যায়, জেনিফার কাপুর ও স্বাতীলেখা সেনগুপ্ত। এই ছবির বিষয়বস্তু নারীমুক্তি, যা সত্যজিতের বহু ছবিতে বহু ভাবে উঠে এসেছে। নারীর মুক্তিকামনার তার ভালবাসার পাত্রকে কিভাবে স্পর্শ করে, তা এই ছবিতে বিশেষভাবে পরিস্ফুট।

চারুলতা: সত্যজিৎ রায় পরিচালিত কবির নষ্টনীড় অবলম্বনে এর চিত্রনাট্য রচিত হয়েছে। ১৯৬৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এই চলচ্চিত্রটি ইংরেজিভাষী বিশ্বে The Lonely Wife নামে পরিচিত। ১৮৭৯ সালের উচ্চবিত্ত এক বাঙালি পরিবারকে কেন্দ্র করে এর কাহিনী রচিত হয়েছে। এতে অভিনয় করেছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, মাধবী মুখোপাধ্যায়, শৈলেন মুখোপাধ্যায়, শ্যামল ঘোষাল।

চোখের বালি: উপন্যাসের বিষয় সমাজ ও যুগযুগান্তরাগত সংস্কারের সঙ্গে ব্যক্তিজীবনের বিরোধ। আখ্যানভাগ সংসারের সর্বময় কর্ত্রী মা, এক অনভিজ্ঞা বালিকাবধূ, এক বাল্যবিধবা ও তার প্রতি আকৃষ্ট দুই পুরুষকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হয়েছে। ১৯০৪ সালে অমরেন্দ্রনাথ দত্ত এই উপন্যাসের নাট্যরূপ দেন। ১৯৩৮ সালে অ্যাসোসিয়েট পিকচার্সের প্রযোজনায় চোখের বালি অবলম্বনে নির্মিত হয় চলচ্চিত্রটি। ২০০৩ সালে বিশিষ্ট পরিচালক ঋতুপর্ণ ঘোষও চোখের বালি উপন্যাস অবলম্বনে একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছিলেন। চোখের বালি ইংরেজি (২ বার), হিন্দি ও জার্মান ভাষায় অনূদিত হয়।

নৌকা ডুবি: চলচ্চিত্রটি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর-এর একই নামের উপন্যাস অবলম্বনে তৈরি করা হয়েছে। এটি একটি সামাজিক এবং গভীর আবেগপ্রবণ একটি চলচ্চিত্র। ঋতুপর্ণ ঘোষ পরিচালিত বাংলা চলচ্চিত্র নৌকাডুবি জানুয়ারি ২০১১-তে মুক্তি পায়। এতে প্রধান চরিত্রে রাইমা ও রিয়া সেন অভিনয় করেন।

 

janatarpratidin.com /Md. Bappy /08 May 2017

 

সর্বশেষ