শিরোনাম

এনআইডি সেবা নিজেদের কাছে রাখতে মন্ত্রিপরিষদে ইসির চিঠি

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৯:৩৭:০৬ পূর্বাহ্ণ - ০৯ জুন ২০২১ | ৭৫

জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন (এনআইডি) সেবা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগে হস্তান্তরের বিষয়ে নিজের বক্তব্য তুলে ধরে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। মঙ্গলবার ইসি’র উপসচিব মোহাম্মদ এনামুল হক স্বাক্ষরিত এই সংক্রান্ত চিঠিটি মন্ত্রিপরিষদ সচিবের কাছে পাঠানো হয়।

চিঠিতে ইসি জানিয়েছে, ইসি ২০০৭-২০০৮ সালে আদালতের নির্দেশনা ও আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের দাবির প্রেক্ষিতে ছবিসহ ভোটার তালিকা প্রণয়নের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। ইসি’র ইউএনডিপি অন্য আটটি দেশের সহায়তায় ২০০৮ সালে একটি কম্পিটারাইজড ভোটার তালিকা প্রণয়ন করা হয়। তথ্য ভাণ্ডার বারবার ব্যবহার করার লক্ষ্যে একটি ডেটা সেন্টার এবং দ্বৈত ভোটার চিহ্নিত করার লক্ষ্যে একটি অফিস সিস্টেম সেন্টারের সাথে যুক্ত করা হয়।

চিঠিতে এনআইডির তৈরির যাবতীয় প্রক্রিয়া ও প্রেক্ষাপট তুলে ধরে বলা হয় বর্তমান পর্যায়ে জাতীয় পরিচয়পত্রের দায়িত্ব অন্য কোনো মন্ত্রণালয়ে বা প্রতিষ্ঠানের হাতে অর্পণ করা হলে নতুন করে মাঠ পর্যায় থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় পর্যায়ে অবকাঠামো, প্রযুক্তি এবং যন্ত্রপাতি সংগ্রহের প্রয়োজন হবে, যা ব্যয় ও সময় সাপেক্ষ বলেও মন্ত্রিপরিষদকে দেওয়া চিঠিতে জানায় ইসি।

জাতীয় পরিচয়পত্র প্রণয়ন এবং ব্যবস্থাপনার জন্য আলাদা কোনও জনবল নির্বাচন কমিশনে নেই উল্লেখ করে ইসি জানায়, ভোটার তালিকা প্রণয়নের জন্য কারিগরি জনবল ডাটা প্রসেসিং করে, অন্য দিকে নির্বাচন কমিশনের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা সার্বিক ব্যবস্থাপনার সঙ্গে জড়িত। সেনাবাহিনী থেকে ডেপুটিশনে নিয়োজিত কর্মকর্তারা স্মার্টকার্ড প্রিন্টিংয়ের কাজ করছেন। এসব কর্মকর্তা ২০০৮ সাল থেকে এই কাজের সঙ্গে জড়িত। এই দীর্ঘ ১২ বছর সময়কালে নানান ধরনের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তাদের দক্ষ ও পারদর্শী করে তোলা হয়েছে। জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত আলাদা কোনও জনবল না থাকায় এসব কার্যক্রম অন্য কোনও মন্ত্রণালয়ের কাছে ন্যস্ত করা হলে মাঠ ও কেন্দ্রীয় পর্যায়ে বিশাল একটি জনবলের প্রয়োজন হবে যা ব্যয় সাপেক্ষ। একইসঙ্গে তারা দক্ষ এবং পারদর্শী হয়ে না উঠলে জাতীয় পরিচয়পত্রের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ মারাত্মক সমস্যার সম্মুখীন হবে।

এতে বলা হয়- নির্বাচন কমিশনের সংগে চুক্তির অধীনে প্রায় ১৪৮টি সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত সেবা দেওয়া হচ্ছে। জাতীয় পরিচয়পত্রের দায়িত্ব অন্য কোনও মন্ত্রণালয়ের কাছে ন্যস্ত করা হলে সেবা প্রদান বিঘ্নিত হওয়াসহ আইনগত জটিলতা সৃষ্টির সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করে কমিশন।

চিঠিতে আরও বলা হয়, জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত কার্যক্রম নির্বাচন কমিশন থেকে আলাদ করতে আগেও একটি উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছিলো। এই লক্ষ্যে একটি সংস্থা কাজ শুরু করলেও তা কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। ফলে তা নির্বাচন কমিশনের কাছেই রয়ে যায়। পরবর্তীকালে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইন ২০১০ এর মাধ্যমে এর কার্যক্রম নির্বাচন কমিশনের কাছে ন্যস্ত করা হয়েছে।

এসব বিষয় জাতীয় পরিচয়পত্রের ব্যবস্থাপনায় যেকোনও পরিবর্তন আনার জন্য অতিগুরুত্বপূর্ণ এবং অপরিহার্য। এসব বিষয় বিবেচনায় আনা হলে জাতীয় পরিচয়পত্রের কার্যক্রম ব্যবস্থা অপরিবর্তিত রাখা সমীচীন হবে বলে কমিশন মনে করে বলেও চিঠিতে জানায় সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি।

গত ১৭ মে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন কার্যক্রম ইসি’র পরিবর্তে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগে ন্যস্ত করার জন্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব বরাবর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে চিঠি দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ওই চিঠির প্রেক্ষিতে ২৪ মে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ইসি সচিব ও সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবের কাছে এই বিষয়ে একটি চিঠি পাঠানো হয়। এসব চিঠির প্রেক্ষিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে এই চিঠি দিলো কমিশন।

সর্বশেষ
%d bloggers like this: