শিরোনাম

ঈদ করুম ক্যামনে?

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৬:৫৮:৩৩ অপরাহ্ণ - ২১ জুন ২০১৭ | ২৭৯

মো: মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী, ময়মনসিংহ :
ঈদ কি? ঈদের কিছু নাই। কেউ জাকাতের কাপড় দিলে, যদি পাই তাহলে ঈদ, না দিলে নাই। ঈদ করুম ক্যামনে? আকাশের দিকে তাকিয়ে কিছুক্ষণপর বললেন রেলস্টেশন সংলগ্ন লাইনের পাশে থাকা রাজিয়া বেগম।

বুধবার দুপুরে ময়মনসিংহ নগরীর রেলস্টেশন সংলগ্ন লাইনের পাশে গিয়ে দেখাযায় রাজিয়া মেয়ে, মেয়ের স্বামী আর দুই নাতি-নাতনিসহ এক ঘরে গাদাগাদি করে প্লাস্টিকের ছাউনির নিচে বিপজ্জনক ছাপড়া ঘরে থাকেন পরিবার নিয়ে।

রাজিয়া বলেন, পোলাপানগোর খাওনই জোটাইবার পারি না, কাপড় কিনুম কি দিয়া। ঈদ আহে আমাগো দুঃহ-কষ্ট বাড়ানের লাইগা। তাদের জন্য ঈদ মানে বিশেষ কিছু নয়। অন্য দশটি-পাঁচটি দিনের মতই আরেকটি দিন। কেউ জাকাতের কাপড় দিলে যদি পায় তাহলেই তাদের ঈদ।

এ বস্তির বাসিন্দা শিল্পী আক্তারএর জীবনের গল্প একটু আলাদা। সংসারের এক ফাঁকে কবে কীভাবে যেন হারিয়ে গেছেন স্বামী। এক বছরের বেশি হল তার কোনো খোঁজ নেই। তিনি বলেন, কাম (স্বামীর) থাকলে কোনো রকমে চলি। কাম না থাকলেতো ভিক্ষাও করন যায় না।

রেললাইনের উপরে বসে থাকা মর্জিনা বেগমের কাছে তার ঈদের প্রস্তুতি জানতে চাইলে তিনি দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে এক নাগাড়ে বললেন এসব কথা। বাসা বাড়িতে কাম করি বড়লোকেরা যা দেয় তাই দিয়া চলি। গরীবের ঈদ নাই, বড়লোকের লাইগা ঈদ।

ঈদে পোশাক কেনা হবে কি না জানতে চাইলে লাইনের পাশে থাকা কিছু শিশু বলেন, মামা টাকা দেন ঈদ করমু। কিছুক্ষনের মাঝে ১০ থেকে ১৫ জন শিশু হাজীর। সবার মুখে একই শব্ধ মামা টাকা দেন ঈদ করমু।

অনিশ্চিত বস্তির জীবনে, অনটনের দিনযাপনে তাদের মত মানুষের কাছে ‘ঈদ প্রস্তুতি’ শব্দবন্ধটির আলাদা কোনো অর্থ নেই। ঈদের দিনেও যাদের থালা নিয়ে বেরুতে হয়, এতটুকু খাবারের আশায় হাজিরা দিতে হয় মানুষের দরজায়, যাদের বেরুতে হয় রিক্সা-ভ্যানগাড়ি নিয়ে, অর্থাৎ সমাজের সেই অংশ, যারা কখনো দু’দিনের খাবার একত্রে জমা করতে পারেনা, তাদের জন্য ঈদ মানে বিশেষ কিছু নয়। অন্য দশটি- পাঁচটি দিনের মতই আরেকটি দিন।

 

janatarpratidin.com / Md. Bappy / 21 June 2017

 

 

সর্বশেষ
%d bloggers like this: