শিরোনাম

ইসলামে মাদক নিষিদ্ধের কথা বলা হয়েছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সর্বশেষ আপডেটঃ ০২:২১:৫৪ পূর্বাহ্ণ - ২০ মে ২০১৭ | ৩০১

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, প্রিয়ধর্ম ইসলামে মাদক নিষিদ্ধের কথা বলা হয়েছে। আামাদের ঐশীর কথা মনে রাখতে হবে। এ রকম আরো ঐশী রয়েছে। তাই মাদক নির্মূলের পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে। যারা মাদক সেবন করে ফেলেছে তাদের ফিরিয়ে আনতে নিরাময়কেন্দ্র করা হয়েছে। বেসরকারিভাবে ১৫৭টি নিরাময়কেন্দ্র করা হয়েছে। মনে রাখতে হবে, মাদক এদেশে তৈরি হয় না। আমরা লাইসেন্স দেইনি। এরপরও কোথায় থেকে মাদক আসে?

ভারতের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে ফেনসিডিল পর্যায়ক্রমে কমে এসেছে। মিয়ানমার থেকে ইয়াবা আসে। তাদের সঙ্গেও আমরা বার বার কথা বলেছি। এখনও অব্যাহত রয়েছে। ইয়াবা আসা বন্ধে সীমান্তে বিজিবি বাড়ানো হয়েছে। দেশের জেলখানাগুলোতে বন্দীদের মধ্যে ২০ ভাগেরও বেশি বন্দী মাদক মামলার আসামি।

মন্ত্রী বলেন, ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক ভয়াবহ আকারে সমাজে ছড়িয়ে পড়েছে। যেকোনো মূল্যে শিক্ষার্থীদের মাদক থেকে দূরে রাখতে হবে। কারণ ২০৪১ সালে এই শিক্ষার্থীরাই দেশের চালিকায় থাকবে।

শুক্রবার বিকেলে গেন্ডারিয়ার ধুপখোলা মাঠে মাদক ও জঙ্গিবিরোধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মাদক নির্মূলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে। আগে যেখানে তিন জেলা মিলে একজন ইন্সপেক্টর ছিল। সেখানে লোকবল বৃদ্ধি করার পরিকল্পনা হয়েছে।

তিনি বলেন, একটি ইস্যুতে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। সেটা হলো- যেকোনো মূল্যে জঙ্গিবাদকে রুখে দাঁড়ানো। আজ মা-বাবা তার ছেলেকে জঙ্গিবাদে জড়ানোর জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দিচ্ছেন।

তিনি বলেন, অভিযানে এখন পর্যন্ত যত জঙ্গি মারা গেছে, পরিবারের কোনো সদস্য লাশ নিতে আসেনি। বাধ্য হয়ে আঞ্জুমানে মফিদুল ইসলামকে দিয়ে জঙ্গিদের লাশ সমাহিত করা হয়েছে।
জঙ্গিবাদের বিষয়ে তিনি বলেন, নির্মূল হয়েছে তা বলব না। জঙ্গি আমরা নিয়ন্ত্রণে রেখেছি। এটি অনেক ত্যাগের বিনিমযে হয়েছে। জঙ্গি এদেশে বিদেশ থেকে আসেনি। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর যারা হাত-পায়ের রগ কাটার মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করেছিল, তারাই আজ জঙ্গি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। তারাই ৬৪ জেলায় একযোগে বোমা হামলা চালিয়েছে। তারাই বিচারককে বোমা মেরে উড়িয়ে দিয়েছে। এরপর বিদেশি হত্যা, মসজিদ-মন্দিরের ইমাম ও পুরোহিত হত্যার ঘটনা ঘটানো হয়েছে। ব্লগারদের হত্যা করা হয়েছে।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, বিদেশ থেকে প্রচার করা হচ্ছে, এদেশে আইএস আছে। কিন্তু আমরা খুঁজে পাই না। একটি পক্ষ অপ্রচার চালাচ্ছে। তাদের জন্য আজ বিদেশে যাওয়ার সময় মুসলমান নাম শুনলে আলাদা লাইনে দাঁড় করায়। ভালো করে কাপড়-চোপড় চেক করে।

 

 

janatarpratidin.com / Md. Bappy / 20 May 2017

 

সর্বশেষ
%d bloggers like this: