শিরোনাম

আমাদের মতো কোনো দেশ বেতন বাড়াতে পারেনি

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৬:০৭:২৬ অপরাহ্ণ - ০১ মে ২০১৭ | ১৮৮

আমরা যেভাবে বেতন বাড়িয়েছি পৃথিবীর কোনো দেশ, কোনো সরকার এই হারে বেতন বাড়াতে পারেনি।

এটা আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি। আমরা এটা করেছি, কারণ যারা কাজ করবে তাদের কল্যাণের ব্যবস্থা তো আমাদেরই করতে হবে। এটা আমাদের দায়িত্ব।

সোমবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে মে দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে বাংলাদেশ আরও অনেক আগেই উন্নত, সমৃদ্ধশালী দেশ হয়ে যেত। কিন্তু বড় দুঃখের বিষয়, তিনি মাত্র সাড়ে তিন বছর ক্ষমতায় থাকার সুযোগ পেয়েছিলেন। ৭৫-এর পরে যারা ক্ষমতায় এসেছিল তারা তো দেশের স্বাধীনতায়ই বিশ্বাস করতো না। তারা স্বাধীনতা বিরোধীদেরকেও ক্ষমতার অংশীদার করেছিল।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা যখন প্রথম ক্ষমতায় আসলাম তখন গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন ছিল মাত্র ৯০০ টাকা। আমরা সেটা ১৬০০ টাকা করার প্রস্তাব করি। কিন্তু আমাদের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে তা বাস্তবায়ন করতে পারিনি। বিএনপি ২০০৬ সালে এসে সেই বেতন বাস্তবায়ন করে। আমরা আবার ক্ষমতায় এসে ২০০৯ সালে সর্বনিম্ন ৫৩০০ টাকা বেতন নির্ধারন করি এবং তা বাস্তবায়ন করি।’

শ্রমিক আন্দোলন সম্পর্কে তিনি বলেন, কিছু শ্রমিক নেতা দেখি কথায় কথায় বিদেশিদের কাছে নালিশ করতে যান। এরা কোথাকার শ্রমিক আমরা জানি না। বিদেশিদের কাছে নালিশ কেন? আমাদের থেকে কি বিদেশিরা এই দেশকে বেশি ভালোবাসে? বিদেশিরা এসে খবরদারি করবে। খবরদারি করতে গিয়ে যদি কারখানা বন্ধ হয়ে যায় তাহলে ক্ষতি কার হবে?

শ্রমিকদের উদ্দেশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের উন্নতি যত হবে আপনাদের সুযোগ-সুবিধা ততই বাড়বে। আপনাদেরকে যাতে বেতন-ভাতার জন্য আন্দোলন করা না লাগে সে ব্যবস্থা আমরাই করব। আমাদের ওপর সেই আস্থা রাখবেন।

অর্থনৈতিক জোনের ব্যাপারে তিনি বলেন, দেশে এক শ বিশেষায়িত অর্থনৈতিক জোন হচ্ছে। সেখানে যাতে আমার দেশের মানুষের কর্মসংস্থান হয় সে জন্যই এসব জোন করা হচ্ছে। এসব অর্থনৈতিক জোনে সব ধরনের জনশক্তিরই দরকার হবে। সেখানে যেমন দক্ষ কর্মচারী লাগবে তেমনি দক্ষ ম্যানেজারও লাগবে। তাই আমাদের সব শ্রেণির জনশক্তিকেই দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে। আমরা সেই ব্যবস্থাও করব।

 

janatarpratidin.com /Md. Bappy /01 May 2017

সর্বশেষ