শিরোনাম

(১৫’ই আগস্ট ও ২১’শে আগস্ট) এই দুই এর মূল লক্ষ্য! একই সূত্রে গাঁথা!

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৫:৪৪:১৫ পূর্বাহ্ণ - ২১ আগস্ট ২০২০ | ৬৭

নিজস্ব প্রতিবেদক: জনতার প্রতিদিন

ইতিহাসের ভয়াবহতম গ্রেনেড হামলার ১৬তম বার্ষিকী পালন। প্রায় দেড় দশক আগে ২০০৪ সালের এই দিনে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসবিরোধী শান্তি সমাবেশে নারকীয় গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। অভিযোগ রয়েছে, মূলত আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করতে বিএনপি-জামায়াত তথা চারদলীয় জোট সরকার রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে নৃশংসতম গ্রেনেড হামলা চালায়।

দিবসটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় গতানুগতিক ধারায় ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগ-
আজ শুক্রবার (রাত ১২ টা ১ মিনিটে) ২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে, ময়মনসিংহ নগরীর গাঙ্গিনাপাড় ফিরোজ জাহাঙ্গীর চত্বরে ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ রকিবুল ইসলাম রকিব এর সভাপতিত্বে, নিহতদের স্মরণে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন ও সকল শহীদের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন, ও সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেছে ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগ।

ময়মনসিংহলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ রকিবুল ইসলাম রকিব বলেন, ২১ শে আগস্ট  গ্রেনেড হামলা ঘটনার যে বিচার হয়েছে এই বিচার বাংলার ছাত্রসমাজ মানে না, কেননা এই বিচার প্রহসনের বিচার হয়েছে। ২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলার মূল আসামি তারেক রহমানকে যতদিন পর্যন্ত না লন্ডন থেকে ইন্টারপোলের মাধ্যমে বাংলাদেশে ফিরিয়ে না আনা হবে এবং ফাঁসিতে ঝোলানো না হবে ততদিন পর্যন্ত এ বিচার সুষ্ঠু বিচার হবে না। এই সুষ্ঠ বিচারের মাধ্যমে বাংলাদেশের সকল ষড়যন্ত্র দূর হবে এবং বাংলাদেশের সকল রক্তমাখা রাজনীতির পরিসমাপ্তি ঘটবে।  

রকিবুল ইসলাম রকিব আরও বলেন জামায়াত শিবির ওরা উৎপেতে বসে আছে,ভবিষ্যতের জন্য সুপরিকল্পিতভাবে নিরবে বেগবান হয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে! যার মূল লক্ষ্য হচ্ছে- যেহতু (ময়মনসিংহ নতুন বিভাগ) তাই তারা আগে থেকেই এই বিভাগের নিয়ন্ত্রণ করতে ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান স্থিতিশীল ময়মনসিংহকে অস্থিতিশীল করার লক্ষে ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগকে প্রথম টার্গেট হিসেবে বেছে নিয়েছে! 

তাই তারা ছলে-বলে-কৌশলে ছদ্মবেশে আমাদেরই হাত ধরে ময়মনসিংহ্ ছাত্রলীগের মূল মসনদে বসে দীর্ঘদিনের ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের রাজপথের প্রতিটি অহংকারকে প্রশ্ন করার মাধ্যমে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে জনগণের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাচ্ছে!

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন, ছিলেন জেলা ছাত্রলীগ অন্যতম ছাত্রনেতা এম এইচ আপন, সাইফুল ইসলাম, জাকির হোসেন, বিপ্লব ঘোষ তপু, রনি সরকার, শাকিল উদ্দিন মাহমুদ রাব্বি, মহানগর ছাত্রলীগ নেতা রাহুল কর্মকার বাবন, মোহাম্মদ আমির হোসেন রিপন,তাহসিন জুনায়েদ জয় শ্যামা আহমেদ, নাফিজুর তাপস প্রমূখ।

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর