শিরোনাম

সুন্দরবনের ছয়টি বনদস্যু বাহিনীর ৫৭জন সদস্য আত্মসমর্পণ!

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৮:৪৮:২৬ অপরাহ্ণ - ২৩ মে ২০১৮ | ১৮৫

প্রতিবেদন:ছয় বনদস্যু বাহিনীর আত্মসমর্পণ বুধবার সুন্দরবনের ছয়টি বনদস্যু বাহিনীর ৫৭

জন সদস্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে ৫৮টি অস্ত্র এবং এক হাজার ২৮৪ রাউন্ড গুলি হস্তান্তর করে আত্মসমর্পণ করেছেন। এই বাহিনীগুলো হচ্ছে দাদা ভাই বাহিনী, হান্নান বাহিনী, আমির আলী বাহিনী, সূর্য্য বাহিনী, ছোট শামসু বাহিনী ও মুন্না বাহিনী।

এর মধ্যে দাদা ভাই বাহিনীর প্রধান মো. জয়নাল আবেদীন ওরফে রাজন ওরফে দাদা ভাই (৩৮) সর্ব প্রথম তার বাহিনীর ১৫ জন সদস্য নিয়ে আত্মসমর্পণ করে। পরে একে একে বাকি পাঁচটি বাহিনীর সদস্যরাও আত্মসমর্পণ করে।

পুলিশের হয়রানি ও মামলা প্রত্যাহার চান আত্মসমর্পন করা দস্যুরা
আত্মসমর্পণ করা বনদস্যুরা পুলিশের হয়রানি ও তাদের বিরুদ্ধে থাকা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিকট। আত্মসমর্পনের পর দাদা ভাই বাহিনীর প্রধান মো. জয়নাল আবেদীন ওরফে রাজন ওরফে দাদা ভাই বলেন, আমরা পরিবার-পরিজন নিয়ে স্বাভাবিকভাবে জীবনযাপন করতে চাই।

কিন্তু আমাদের মামলা প্রত্যাহার না হওয়ায় পুলিশ আমাদের হয়রানি করে থাকে। এতে আমাদের মত আমাদের পরিবারের সদস্যরাও সব সময় আতঙ্কিত থাকে।ইতিপূর্বে আত্মসমর্পণ করা মজিদ বাহিনীর প্রধান তাকবির ওরফে মজিদ বলেন, আমরা র্যা বের কাছে অস্ত্র দিয়ে আত্মসমর্পন করলেও মামলা থাকায় পুলিশ আমাদের হয়রানি করছে। এই মামলা প্রত্যাহার করা না হলে আমাদের স্বাভাবিক জীবনে বেঁচে থাকা খুব কঠিন।আর কোন অপরাধ জগতে ফিরে যেতে চাইনা। আমরা এই মুক্ত জীবনে থাকতে চাই। কাজ করে পরিবার-পরিজন নিয়ে ভালো থাকতে চাই। তিনি মামলা প্রত্যাহার করে পুলিশি হয়রানির হাত থেকে বাঁচতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও র্যা ব প্রধানের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।উল্লেখ্য, বিগত ২৩ মাসে সুন্দরবনের ২০ দস্যু বাহিনীর ২১৭ জলদস্যু ৩৬৪টি অস্ত্র ও ১৭ হাজার ৮৬৯ রাউন্ড গুলিসহ আত্মসমর্পন করে। এ সময় র্যা বের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে ১৩৪ বনদস্যু।

সর্বশেষ