শিরোনাম

সবাই বিরোধ ভুলে কাজ করি হাসপাতাল ভাল থাকলে ময়মনসিংহের মানুষ নিরাপদ থাকবে

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৭:০৫:১৯ পূর্বাহ্ণ - ২০ জুলাই ২০১৭ | ২৩৮

মো: মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী, ময়মনসিংহ :
ময়মনসিংহবাসীর চিকিৎসা সেবার প্রধান জায়গা ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। আগে এই হাসপাতাল নিয়ে মানুষের নানা অভিযোগ থাকলেও এখন খুব বেশি নেই।
প্রতিদিন এখানে বহি:বিভাগে কমপক্ষে চার হাজার রোগি এবং অন্ত: বিভাগে আড়াই হাজার রোগি ভর্তি হচ্ছে। রোগীরা নিয়মিত সরকারি ঔষধ পাচ্ছে। পাচ্ছে মান সম্মত খাবার। হাসপাতালের সর্বত্র পরিচ্ছন্নতার পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।
এইসব কিছুর কারিগর ময়মনসিংহ মেডিকেল হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. নাসির উদ্দিন আহমেদ। দায়িত্ব নেয়ার পৌনে দুই বছরের মাথায় তিনি এ হাসপাতালের চেহারাই পাল্টে দিয়েছেন।
কিন্তু তাকে বদলি করা হচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে। কিন্তু এই অঞ্চলের মানুষ আরও কিছুদিন তাকে পরিচালক হিসেবে দেখতে চায়। মেডিকেল হাসপাতালে তার সেব পেতে চায়।
বাংলাদেশ সরকারের কাছে ময়মনসিংহের সাধারন মানুষ অনুরোধ জানিয়েছেন বদলি না করে হাজার হাজার মানুষের সেবা দিতে তাকে রাখা হোক।
ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. নাসির উদ্দিন আহমেদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কিছু সমস্যা ও সমাধাদের কথা পোষ্ট করেছেন তা থেকে কিছু কিছু লেখা ময়মনসিংহবাসীর কাছে তুলে ধরা হলো।
এক বছর আট মাস ময়মনসিংহ মেডিকেল হাসপাতাল পরিচালনা করতে গিয়ে হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. নাসির উদ্দিন আহমেদ অনেক সমস্যায় পরেছেন।
প্রথম কারন আমাদের ডাকতার দের কিছুটা দায়িত্ব হীনতা। দ্বিতীয় কারন রোগীদের অসচেতনা। তৃতীয় কারন লোভ লালসার কাছে আত্মসমপর্ন। এই সমস্যা গুলোর সমাধানও তিনি পেয়েছেন প্রথম জন সচেতনতা বাড়াতে হবে। দ্বিতীয় প্রচার করতে হবে সুধী সমাজ কে। তৃতীয় জনমত যখন শক্তিশালী হয় তখন পরিবর্তন তাড়াতাড়ি হবে। না পাওয়ার দীর্ঘদিনের সংস্কৃতি ঠিক হতে সময় লাগবে এটা সবাই জানে।
তিনি বলেছেন, আমাদের সরকার যথেষ্ঠ বাজেট দেয়। যা আমাদের পর্যায়ের পৃথিবীর কোন দেশ দেয়া হয় না। মানুষের লোভ, লালসা সব উন্নয়ন এর প্রতিবন্ধক সৃস্টি করে। ক্ষুদ্র অভিজ্ঞতায় মনে হয় দৃঢ় সদিচ্ছা থাকলে সব বাধা পেরিয়ে এ দেশকে প্রকৃত অর্থেই উন্নত দেশ হিসাবে গড়ে তুলা সম্ভব এমনটাই মনে করেন তিনি।
সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের পূর্ন সহযোগিতা, উপদেশ, সমর্থন এবং নজর দারী পেলে ময়মনসিংহ মেডিকেল হাসপাতালে কাংখিত সেবা দিতে পারবেন এমনটাই আশা করেন তিনি।
কিন্তু ডা. নাসির উদ্দিন আহমেদকে ময়মনসিংহের কিছু না চাওয়া মানুষ রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ড নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার চালাচ্ছে। অপ রাজনীতি করে। নিজেদের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি করছেন।
এ বিষয়ে ডা. নাসির উদ্দিন আহমেদ বলেছেন আমি রাজনীতি সচেতন। আমার বাবা ১৯৬৯ থেকে ১৯৭৫ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য ছিলেন। বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু আমার আদর্শিক নেতা। আমি সেনা সদস্য হিসেবে কোন দল করি না। মেডিকেল কলেজে পড়ার সময় আমি জাসদ ছাত্র রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলাম।
শেষ কথা হল আমাদের এবং আপনাদের দায়িত্ব হাস্পাতালের পরিবেশ সুন্দর রাখতে সহযোগিতা করি। আমারা সবাই একএে পরিপূরক হয়ে পরিবর্তন আনতে পারি। সাধারন মানুষের একটি পক্ষ হয়ে কাজ করি। হাসপাতালের পরিবেশ সুন্দর রাখতে জনগন ও হাসপাতালের সবাই একত্রে বিরোধ ভুলে কাজ করি। হাসপাতাল ভাল থাকলে ময়মনসিংহের মানুষ ভাল থাকবে নিরাপদ থাকবে।

 

 

সর্বশেষ