শিরোনাম

রোহিঙ্গা গণহত্যা আন্তর্জাতিক আদালতে তোলা যায়

সর্বশেষ আপডেটঃ ০২:০৭:০৪ পূর্বাহ্ণ - ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | ১৪২

মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচারে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে যাওয়া যায় বলে মনে করছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি রোহিঙ্গাদের মানবিক দিক বিবেচনা করে মিয়ানমারকে আন্তর্জাতিকভাবে চাপ প্রয়োগ করার পক্ষে মত দেন।

১৬ সেপ্টেম্বর শনিবার রাতে বেসরকারি একটি টেলিভিশন চ্যানেলে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে আমরা যেতে পারি, বা যাওয়া যায়। সেটা সম্বন্ধে আমি নিশ্চয় দ্বিমত পোষণ করব না। তবে আমাদের প্রথম কাজ হলো তাদের (রোহিঙ্গা) মানবিক দিকটা দেখা। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে যেকোনো সময় যাওয়া যাবে। সেখানে সময় বেঁধে দেয়া নেই।

আনিসুল হক বলেন, এখন আমাদের প্রথম কাজটা কী? তাদের যে মানবেতর অবস্থা, শুধু যারা একাত্তর দেখেছি, তারা বুঝতে পারি। সে জন্যই এত দুর্বলতা তাদের প্রতি।

আইনমন্ত্রী জানান, বিচারপতিদের নিয়োগের বিষয়ে একটি নীতিমালা তিনি লিখছেন। উচ্চ আদালতে বিচারক নিয়োগ প্রক্রিয়া স্বচ্ছ করার উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে একটা আইনের খসড়া প্রস্তুত করছি।

ষোড়শ সংশোধনীর রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ করার বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, আমরা চাইব রায়ে যে অপ্রাসঙ্গিক বিষয়গুলো বলা হয়েছিল, সেগুলো এক্সপাঞ্চ করা হোক।

তবে রিভিউর যেকোনো রায় সরকার মেনে নেবে বলে জানান আইনমন্ত্রী। বলেন, দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। সেখানে যদি রিভিউ খারিজ হয়ে যায় তাহলে আমাদের সেটা মেনে নিতে হবে। রিভিউ আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। রিভিউ করার সুযোগ রয়েছে, তাই আমরা সুযোগটা নিচ্ছি।

সর্বশেষ