শিরোনাম

ময়মনসিংহে গ্রাহকের সঙ্গে অভিনব প্রতারণা, ৯ প্রতিষ্ঠানকে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা

সর্বশেষ আপডেটঃ ০১:২৩:০৩ অপরাহ্ণ - ০৮ আগস্ট ২০১৭ | ১৯৯

উবায়দুল হক| জনতার প্রতিদিন.কমঃ

ময়মনসিংহে গ্রাহকের সঙ্গে অভিনব প্রতারণা করে আসছিলো বেশ কিছু মিষ্টি দোকানী। মিষ্টি সরবরাহের খালি প্যাকেটের ওজন ১৯৫ গ্রাম ও ঠোঙ্গার ওজন ৮০ গ্রাম হওয়াসহ বিভিন্ন অপরাধে ৯টি প্রতিষ্ঠানকে বিভিন্ন ধারায় মোট ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ময়মনসিংহ জেলার ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

সোমবার জেলার হালুয়াঘাটে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ময়মনসিংহ জেলার সহকারী পরিচালক মোঃ শাহ আলমের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে এ জরিমানা করা হয়। এসময় জেলা স্যানিটারি ইন্সপেক্টার আবুল কালাম আযাদ, জেলা বাজার কর্মকর্তা জিল্লুল বারী এবং জেলা ক্যাব এর সেক্রেটারি গোলাম রহমান ফিলিপ উপস্থিত ছিলেন।

সহকারী পরিচালক মোঃ শাহ আলম জানান, ফুলপুর সুইটমিটে খাকি মোড়কের ঠোঙ্গার ৮০ গ্রাম পাওয়া যায় অর্থাৎ ৬ টা ঠোঙ্গার ওজন প্রায় আধা কেজি। এই অপরাধে এ প্রতিষ্ঠানকে ৩৭,৪২,৪৩,৪৬ও ৫১ ধারায় মোট ১০হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। একইসঙ্গে শাহী সুইটস এ ১৯৫ গ্রাম ওজনের এবং রাবিতা আল মদিনা সুইটস এ ১৬৪ গ্রাম ওজনের মিষ্টি সরবরাহের প্যাকেট পাওয়া যায়। পরে তাদেরকে যথাক্রমে ৩ হাজার ও ১২হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পরে এগুলোর উপর ট্রাক চালিয়ে ধ্বংস করা হয়।

এছাড়াও মায়ের দোয়া বেকারীকে ৩৭,৪২ ও ৪৩ ধারায় মোট ১০হাজার টাকা, হামিম বেকারীকে ৩৭,৪২ ও ৪৩ ধারায় মোট ১০হাজার টাকা, রিয়ান হোটেলকে ৪৩ ধারায় ২হাজার টাকা,কাকলী হোটেলকে ৩৭,৪২ ও ৪৩ ধারায় মোট ১০হাজার টাকা, বিসমিল্লাহ হোটেলকে ৪৩ ধারায় ৩ হাজার টাকা এবং মনির ষ্টোরকে ৫১ ধারায় ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এসময় বিপুল পরিমাণ মেয়াদোত্তীর্ণ সেমাই ও নুডুলস, খাদ্যে অনুপযোগী রং, নষ্ট চিনির শিরা এবং হাইড্রোজ মিশ্রিত জিলাপী স্পটে ধ্বংস করা হয়। পরে জনসাধারণকে সচেতন করতে লিফলেট বিতরণ করা হয় বলেও জানান ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের এ কর্মকর্তা।

সর্বশেষ