শিরোনাম

মাঝ রাতে শেয়ালের ডাকে ঘুম ভাঙ্গে ময়মনসিংহবাসীর

সর্বশেষ আপডেটঃ ০২:৫০:৫৬ পূর্বাহ্ণ - ০৮ জানুয়ারি ২০১৯ | ৭৭

মো. মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী, ময়মনসিংহ : শেয়াল নিশাচর প্রাণী হলেও আগে গ্রামগুলোতে দিনের বেলায়ও দেখা মিলত এদের। শীতের মধ্যরাতে গ্রাম তোলপাড় করে এক সাথে ডেকে ওঠত শেয়ালের দল।

কিন্তু ময়মনসিংহ শহরে এখন সন্ধ্যার আগমুহূর্তে শেয়ালদের আনাগোনা শুরু হয়ে যায়। গর্ত বা গোপন আস্তানা থেকে বেরিয়ে এরা একে-অপরকে ডাকতে শুরু করে। আসর জমাতে শুরু করে সারারাতের দলগত শিকার সন্ধানের জন্য। একটি ডাক দিলে, অপরটি সেই ডাকে সুর মেলায়। তারপর অন্যগুলোও।
এভাবে অল্পক্ষণের মাঝে পুরো এলাকা শেয়ালময় হয়ে ওঠে। শেয়ালদের কেউ কেউ আবার কিছুটা সাহসী। গাড়ি বা যানবাহন পাশ দিয়ে চলে গেলেও ভয় পায় না তেমন।
কিন্তু ময়মনসিংহ শহরের বিভিন্ন এলাকায় হঠাৎ হঠাৎ নিস্তব্ধ মধ্যরাতে শেয়ালের হুক্কা-হু-হুক্কা-হুয়া ডাকে ঘুম ভাঙ্গে শিশু-কিশোরসহ এলাকাবাসীর। শীতের সন্ধ্যা কিংবা মাঝরাতে অচিরেই অস্তিত্ব হারানোর শংকা নিয়ে ভয়ার্ত কন্ঠে ডেকে ওঠে শেয়ালের দল।
রাতে রাস্তায় হাঁটতে বের হলে দু-একটির সাথে মুখোমুখি সাক্ষাৎও ঘটে যায় অনেক সময়। তবে সাক্ষাৎকালটা হয় খুবই অল্প। দেখা পাওয়া মাত্র লজ্জাবতী কুমারী নারীর মত লুকিয়ে যায়।
শহরের সানকিপাড়া এলাকার বাসিন্দা ফাতেমা আক্তার বলেন, মাঝ রাতে শেয়ালদের ভয়ে ঘুম ভেঙ্গে যায়। ঘুমের অসুবিধে হয়। শেয়াল প্রহরে প্রহরে ডেকে যায়। এছাড়া কখনো কখনো ভয়ংকর চিৎকার শোনা যায় ।
কলেজ রোড এলাকার বাসিন্দা শারমীন জাহান বলেন, মাঝ রাতে শেয়ালদের ভয়ংকর চিৎকারে আমার ছেলে ভয়ে ঘুম ভেঙ্গে যায়। তারপর জ্বালাতন করা সন্তানটিকে ডাকগুলো শুনিয়ে বলেন, ওই যে শেয়াল ডাকছে ঘুমিয়ে পড়ো তাড়াতাড়ি।

সেন বাড়ি এলাকার বাসিন্দা ইসমাইল হোসেন সায়েম বলেন, দিন শেষে রাতে যখন বাসার পথে যাওয়া হয় প্রচুর পরিমাণে শেয়ালদের দেখা মিলে। এই এলাকায় ঝোপঝার থাকায় ওরা খুব সহজে দিনের আলোয় লুকিয়ে থাকে। এদের দেহে হলুদ, লালচে ও বাদামি রঙের উপস্থিতি থাকায় অদ্ভুত লাগে দেখতে।

সর্বশেষ