শিরোনাম

বঙ্গবন্ধু’র আদর্শ বাস্তবায়নের শপথ টিটু’র রক্তে মিশে রয়েছে, দমিয়ে রাখে কার সাধ্য

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৮:০৮:২৩ পূর্বাহ্ণ - ২৬ মার্চ ২০১৯ | ১৮৬

মো. মেরাজ উদ্দিন বাপ্পী, ময়মনসিংহ: আপামর জনতার কাছে চিরঞ্জীব, চিরস্মরণীয় ও জননন্দিত জনসেবক মো: ইকরামুল হক টিটু রাজনীতির মাঠে-ময়দানে ছুটে চলেছেন নগরবাসীর হৃদয় জয় করে হাঁটছেন অবিরাম। মানুষের সমস্যা, অভিযোগ আর সুখ-দুঃখের কথা শুনে যার দিনটি শুরু হয় সেই মানুষটির নাম ইকরামুল হক টিটু। তিনি ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের প্রথম প্রশাসক ও পৌরসভার সাবেক সফল নগরপিতা এবং মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি।

গণমানুষের কল্যাণ ছাড়া অন্যকিছু ভাবার মোটেও ফুরসত নেই মো: ইকরামুল হক টিটু’র। খুব ভোরে ফজরের নামাজ শেষে মহান রাব্বুল আলামিনের কাছে প্রার্থনার মাধ্যমে দিন শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত ময়মনসিংহ নগরীর পুরো এলাকার সকল জনপদের মানুষের সেবায় পরম ব্রত মেনে তাদের পরশে নিজেকে ধন্য জেনে নিয়মমাফিক প্রাত্যহিক জীবনধারা অনুসরণ করে চলেছেন।

এলাকার মানুষের বিপদ-আপদ, বালা-মুছিবত, দুর্ঘটনার সংবাদ শুনেই যিনি ছুটে এসে তাদের পাশে দাঁড়িয়ে অভয় দিয়ে বুঝিয়ে দেন ভয় নেই আমি এসে গেছি। দলীয় নেতা-কর্মী কিংবা সাধারণ মানুষ কারো শত আব্দারেও এতটুকু বিচলিত বা রাগ করতে দেখা যায় না সদা হাস্যোজ্জল ময়মনসিংহবাসীর প্রিয় নেতা মো: ইকরামুল হক টিটু।

দীর্ঘ আট বছর সফলভাবে ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনের পর তিনি পেয়েছেন নবগঠিত ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের প্রথম প্রশাসক। পারিবারিকভাবেই বঙ্গবন্ধুর আর্দশ ও আওয়ামী লীগের রাজনীতি তার রক্তে মিশে আছে। ব্রহ্মপুত্রের পাড়ে, সাহিত্য সংস্কৃতির উত্তরাধিকারিত্ব নিয়ে রাজনীতিতে নন্দিত এক নায়ক হিসেবে পরিচিত হয়েছেন মো: ইকরামুল হক টিটু।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অত্যন্ত স্নেহভাজন, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বাস্তবায়নের শপথ যার রক্তে মিশে রয়েছে তাকে দমিয়ে রাখে কার সাধ্য। দলের তৃণমূলের নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষের মতামতকে বিবেচনায় নিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব আগামী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে যোগ্য প্রার্থী জননেতা ইকরামুল হক টিটু’কে মনোনয়ন দিয়ে বর্তমান উন্নয়নে সরকারের ভিশন ২০৪১-এর সাথে তালমিলিয়ে চালানোর মতো পরিবেশ তৈরি করেছেন মো: ইকরামুল হক টিটু।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর প্রয়াত অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম এর রাজনীতিকের স্মরণে নগরীর টাউন হল মোড় এলাকায় প্রথম নির্মিত হয় শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্কয়ার। এ স্কয়ার নির্মাণের মধ্যে দিয়ে বিউটিফিকেশনের যুগে প্রবেশ করে ময়মনসিংহ নগরী। প্রশাসক টিটু তখন ছিলেন পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র।

এরপর নির্বাচনে ব্যালট বিপ্লবের মধ্যে দিয়ে পৌরপিতার পদে আসীন হয়ে তিনি পাটগুদামম র‌্যালীরমোড়কে নামকরণ করেন ‘বিজয় ৭১’। ১৯৭১ সালের ১০ ডিসেম্বর ময়মনসিংহ মুক্ত দিবসে মুক্তিযোদ্ধা জনতার বিজয় র‌্যালির সূচনা হয়েছিল এ মোড় হয়েই। এখানেই টিটু গড়েছেন অনুপম স্থাপত্য ভাস্কর্য। এখানে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে ৮ বীর শ্রেষ্ঠের ম্যুরাল।

এ ভাস্কর্যের দৌলতেই কথা বলে ইতিহাস। এর মাধ্যমেই মহান মুক্তিযুদ্ধের গৌরবের বার্তা নতুন প্রজন্মে মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছেন এ নগর পিতা। ময়মনসিংহের প্রথম শহীদ মিনার স্থাপিত হয়েছিল ময়মনসিংহ পৌরসভা মোড়ে। কালের কপোলতলে এ ইতিকথা হারিয়ে যেতে বসেছিল। নান্দনিক রূপ দিয়ে তা ফিরিয়ে এনে নির্মাণ করা হয়েছে প্রথম শহীদ মিনার স্মারক। এর নামকরণ করা হয়েছে ‘স্মৃতি অম্লান’।

নগরীর প্রাণ কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত গাঙ্গিনারপাড়। এ মোড়ের নামকরণ করা হয়েছে ‘শাপলা স্কয়ার। গাঙ্গিনারপাড় মোড়ে প্রায় দেড়শ বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী পানির ট্যাংকের নিচে নুড়ি পাথরের সামনে বসানো হয়েছে ঝিনুক। দু’পাশে দু’টি সাদা বক। তার সঙ্গেই রয়েছে এনসিসি ব্যাংকের সৌজন্যে এটিএম বুথ নান্দনিকতার ছোঁয়ায় এ মোড়কেও বদলে দিয়েছেন আপামর জনতার জননন্দিত জনসেবক মো: ইকরামুল হক টিটু।

সূত্র জানায়, বিদ্যমান সঙ্কট এবং সমস্যার বেড়াজাল থেকে নগরীকে পরিকল্পিত ও আধুনিক রূপ দিতে তৎকালিন মেয়র টিটু গ্রহণ করেন নানামুখী উদ্যোগ।পরিচ্ছন্ন সবুজ নগরী গড়তে তিনি গুরুত্বারোপ করেন। অপরিচ্ছন্ন শহরের বদনাম থেকে শহরটিকে বের করে আনার উদ্যোগ ফলপ্রসু হয়ে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় এ নগরীকে দেশের মডেল নগরে পরিণত করেছেন।

তার হাত ধরেই ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নেও মডেল এখন সংস্কৃতির এ নগরী। ঐতিহ্যবাহী ময়মনসিংহ জিলা স্কুল থেকে মাত্র কয়েক গজ দূরে নগরীর পুরাতন ফুলবাড়িয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় শিক্ষার শেকড় এবং চরপাড়া মোড় এলাকায় স্থাপন করা হয়েছে ‘টাইম স্কয়ার। রাতের চরপাড়া মোড় এ টাইমস স্কয়ারের বর্ণিল আলোচ্ছটায় হয়ে উঠছে অপরূপ।

মেয়র টিটুর হাত ধরেই নতুন আদল পেয়েছে নগরীর সাবেক সাহেব কোয়ার্টার পার্ক এখন জয়নুল উদ্যান। আধুনিকতার মিশেলে বিপিন পার্কও আধুনিকায়ন সৌন্দর্য্য বর্ধনের দৃষ্টান্ত। দলীয় রাজনীতির শেকল ভেঙে নবীন-প্রবীণ রাজনীতিকের সমন্বয় ঘটিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন জননন্দিত জনসেবক মো: ইকরামুল হক টিটু। তরুণ প্রজন্মের কাছে হয়ে উঠেছেন নতুন এক উন্মাদনার নাম। নগরবাসীর প্রাণ টিটু’র উন্নয়ন কর্মযজ্ঞে দলীয় ভাবমূর্তিও উজ্জ্বল হয়েছে এবং হচ্ছে।

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক মো: ইকরামুল হক টিটু বলেন, ময়মনসিংহ নগরীকে আধুনিকায়নের দিকে এগিয়ে নেয়াই আমার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। এ লক্ষ্য বাস্তবায়নে সবাই আমাকে আকুন্ঠ সমর্থন জুগিয়েছেন। আমি চেষ্টা করেছি বিদ্যমান নানা সঙ্কট এবং সমস্যার বেড়াজাল থেকে নগরীকে পরিকল্পিত ও আধুনিক রূপে উপহার দিতে।

সর্বশেষ