শিরোনাম

“পাকিস্তানিদের সঙ্গে লড়াই করা তারামন বিবি কথা বলতে পারছেন না”

সর্বশেষ আপডেটঃ ১১:০৮:১৬ অপরাহ্ণ - ০৮ নভেম্বর ২০১৮ | ১৭

পাকিস্তানিদের সঙ্গে লড়াই করে বাঙালি জাতিকে লাল-সবুজের পতাকা এনে দেওয়া
জাতির বীর কন্যা বীরপ্রতীক তারামন বিবিকে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) পাঠানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ৮ নভেম্বর সকাল ৯টার দিকে তাকে কুড়িগ্রামের রাজীবপডুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে ময়মনসিংহ সিএমএইচে পাঠানো হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে বিকেলে ঢাকা সিএমএইচে নেয়া হয়।

সার্বক্ষনিক তার পাশে রয়েছেন একমাত্র ছেলে আবু তাহের। জাতির এই বীর কন্যার সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে তিনি জানান, আমার মায়ের একটি ফুসফুস অনেক আগে থেকেই নষ্ট। আরেকটিও প্রায় অকার্যকর। আর শ্বাসকষ্টের সমস্যা তো আছেই। মাঝেমধ্যে শ্বাসকষ্ট অনেক বেড়ে যায়। আবার কোনো সময় নিয়ন্ত্রণে থাকে। সকাল ৮টা থেকে দুপুর দেড়টা এই দীর্ঘপথে অ্যাম্বুলেন্সে করে ময়মনসিংহে আসার পথে একটি কথাও বলেননি মা তারামন কথা বলার মতো মায়ের অবস্থা নেই।

বাঙালির জাতির গৌরবময় স্বাধীনতা অর্জনের অন্যতম দিকপাল তারামন বিবি ২০১৪ সালের দিকে তারামন বিবির ফুসফুসের সমস্যা ধরা পড়ে। এরপর প্রয়োজনীয় চিকিৎসা করানো হয়। কিন্তু উন্নতি হয়নি অবস্থার। এরপর ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহের দিকে গুরুতর অসুস্থ হয়ে রংপুর থেকে সরাসরি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ) থেকে কুড়িগ্রামের রাজীবপুর কাচারিপাড়ার বাড়িতে ফিরলেও শ্বাসকষ্টের সমস্যা থেকে মুক্তি মেলেনি মাত্র ১৪ বছর বয়সে সম্মুখ সমরে লড়াই করা এই বীর মুক্তিযোদ্ধা।

প্রসঙ্গত, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে ১১ নম্বর সেক্টরে তারামন বিবি মুক্তিবাহিনীর রান্না-বান্না, তাদের অস্ত্র লুকিয়ে রাখা, পাকবাহিনীর খবরাখবর সংগ্রহ করতেন। স্বাধীন বাংলাদেশে তাকে সরকার বীরপ্রতীক খেতাব দেয়।

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর