শিরোনাম

আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনী রোডম্যাপ নিয়ে বৈঠক আজ

সর্বশেষ আপডেটঃ ০৩:০৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ - ১৪ মে ২০১৭ | ১৬২

আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনের রোডম্যাপ নিয়ে রোববার বৈঠকে বসছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এতে ২৩টি এজেন্ডা রাখা হচ্ছে। আর রমজানের পর জুলাই থেকেই রোডম্যাপ অনুযায়ী সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের মহাকর্মযজ্ঞ শুরু হচ্ছে।

ইসির সচিবালয় জানিয়েছে, রোববারের বৈঠকে নির্বাচন কমিশন যে সিদ্ধান্ত দেবে সচিবালয় তাই বাস্তবায়ন করবে।

জানা গেছে, রোডম্যাপে ভোটার তালিকা প্রস্তুত, নির্বাচনী আইন সংস্কার, রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ, সাংবাদিক ও এনজিগুলোর সঙ্গে সংলাপ, ৩০০ সংসদীয় আসনের সীমানা নির্ধারণ, নতুন দলের নিবন্ধন এবং নির্বাচনে ব্যবহারের জন্য ডিজিটাল মেশিন বা ডিভিএম-ইভিএম প্রস্তুত করার কাজ রাখা হচ্ছে।

এসব কাজের টাইম ফ্রেম নির্ধারণ করে তৈরি করা হয়েছে নির্বাচনী রোডম্যাপের খসড়া। রোববারের সভায় রোডম্যাপ ছাড়াও নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থার নিবন্ধনের বিষয়েও আলোচনা হতে পারে।

ইসির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ২০১৮ সালের নভেম্বরের মাঝামাঝিতে একাদশ সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে ডিসেম্বরের শেষে অথবা জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে ভোটগ্রহণের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি। ভোটের জন্য প্রস্তুত থাকতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে ইসির মাঠ কর্মকর্তাদের। ভোটগ্রহণের জন্য তাদের দেওয়া হবে নানা ধরনের প্রশিক্ষণ।

মধ্য জুলাইয়ে সংলাপের পরিকল্পনা
একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রোডম্যাপ চূড়ান্ত করে রাজনৈতিক দলসহ সব স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে সংলাপের কথা আগেই জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা।

তিনি বলেন, সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে অ্যাকশন প্ল্যান বা রোডম্যাপ তৈরি করছে ইসি সচিবালয়। আমরা এটা নিয়ে বসব, চূড়ান্ত করে কাজ শুরু করব।

তিনি জানান, নির্বাচনী বিষয়ে রোডম্যাপের কাজ ধরে এগোনো হবে। সেক্ষেত্রে সবার মতামত নেওয়া হবে। মধ্য জুলাইয়ের মধ্যে সংলাপের পরিকল্পনা রয়েছে। আগাম কিছু বলব না, চূড়ান্ত হলেই আপনাদের জানাব।

যা থাকছে খসড়া রোডম্যাপে

রোডম্যাপে অগ্রাধিকার পাচ্ছে, নির্বাচনী আইনের সংস্কার, সংসদীয় আসনের সীমানা নির্ধারণ, নতুন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন, ভোটার তালিকা প্রস্তুত, ভোটকেন্দ্র প্রস্তুত, রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সভা বা সংলাপ এবং ডিজিটাল ভোটিং মেশিন প্রস্তত করা। এ ছাড়া আগামী দিনে ইসির বিভিন্ন কার্যক্রমের পরিকল্পনাও রাখা হবে রোডম্যাপে।

রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ, আইন সংশোধন

একাদশ সংসদ নির্বাচনের খসড়া রোডম্যাপে চলতি বছরের মধ্য জুলাইয়ে রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ, সিনিয়র সাংবাদিক ও এনজিও প্রতিনিধিদের সঙ্গে সংলাপ করার পরিকল্পনা রাখা হয়েছে। তাদের কাছে নির্বাচনী আইন সংস্কারের বিষয়ে পরামর্শ নেওয়া হবে। এরপর আগস্টে প্রস্তাবিত আইন-বিধির খসড়া তৈরি করা এবং সেপ্টেম্বরের মধ্যে তা আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। সেইসঙ্গে ডিসেম্বরের মধ্যে সব আইন-বিধি চূড়ান্ত করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

চলতি বছরের আগস্টে নির্বাচনী এলাকার সীমনা নির্ধারণে জিআইএস সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে মতবিনমিয় করবে ইসি। এরপর ডিসেম্বরের মধ্যে ৩০০ সংসদীয় আসনের সীমানা নির্ধারণ করার সময় সীমা রাখা হচ্ছে। এরপর আগামী ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারিতে ভোটার তালিকা চূড়ন্ত করা, ফেব্রুয়ারির মধ্যে নতুন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন সম্পন্ন করা এবং ফেব্রুয়ারির মধ্যে সংসদ নির্বাচনে ব্যবহারের জন্য ডিজিটাল মেশিন প্রস্তুত করার সময় সীমা (টাইম ফ্রেম) নির্ধারণ করে দেওয়া হচ্ছে রোডম্যাপে।

অন্যদিকে, রোডম্যাপ বা কর্মপরিকল্পনায় একাদশ সংসদ নির্বাচনের জন্য ভোটকেন্দ্রে প্রস্তুত করা, মালামাল সংগ্রহ, ভোটের আগে দ্বিতীয় দফায় রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ, নির্বাচনী আইন সংশোধনসহ বেশ কিছু বিষয়কে অগ্রধিকার দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে ইসি সচিবালয়।

 

janatarpratidin.com / Md. Bappy / 14 May 2017

 

সর্বশেষ